আজ : ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Breaking News

মেয়র’র বিদেশ ভ্রমন স্থবির পৌর কার্যক্রম

এম জামাল হোসেন : বরিশালের নবগঠিত পৌরসভা উজিরপুরের মেয়র গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারী হঠাৎ করেই সকলের অগোচরে বিদেশ ভ্রমনে গিয়েছেন। নতুন পৌরসভার দায়িত্বও দিয়ে যাননি কাউকেই। এমনকি পৌর সচিবও ছুটিতে আছেন। গত ৩ দিন ধরে তাই পৌরসভার কার্যক্রম অনেকাংশে স্থবির। সাধারন মানুষ সেবা পেতে পৌর ভবনে এসেও ফিমেয়র’র বিদেশ ভ্রমন স্থবির পৌর কার্যক্রম
এম জামাল হোসেন : বরিশালের নবগঠিত পৌরসভা উজিরপুরের মেয়র গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারী হঠাৎ করেই সকলের অগোচরে বিদেশ ভ্রমনে গিয়েছেন। নতুন পৌরসভার দায়িত্বও দিয়ে যাননি কাউকেই। এমনকি পৌর সচিবও ছুটিতে আছেন। গত ৩ দিন ধরে তাই পৌরসভার কার্যক্রম অনেকাংশে স্থবির। সাধারন মানুষ সেবা পেতে পৌর ভবনে এসেও ফিরে যাচ্ছেন। প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলররা জানান, মেয়রের অনুপস্থিতিতে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া যাচ্ছে না। কবে নাগাদ ফিরবেন তাও জানা নেই। এ নিয়ে গোটা উজিরপুরে নানা গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে।
নির্ভরযোগ্য সুত্রমতে, গত সোমবার আকস্মিক ভারতের উদ্দেশ্যে যান উজিরপুরের পৌর মেয়র যুবলীগ সভাপতি গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারী। তিনি ভারতের বিভিন্ন স্থান ভ্রমনে গিয়েছেন বলে তার ঘনিষ্ঠজনরা জানিয়েছেন। অবশ্য আনুষ্ঠানিকভাবে কাউকে দায়িত্বপ্রদান কিংবা স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়কে অবহিতও করে যাননি। এর ফলে উজিরপুর পৌরসভার কার্যক্রম এখন অনেকাংশে স্থবির হয়ে আছে। পৌরভবনের তথ্যমতে, গত ক’দিন ধরে পৌরবাসী নাগরিক সুবিধা পেতে আসলেও শুন্য হাতে ফিরে যাচ্ছেন। ওয়ারিশ সার্টিফিকেট প্রদান, রাস্তা-ঘাট নির্মান, জলাবদ্ধতা নিরসন, পয়নিস্কাসন, রিকশা, অটোরিক্সার লাইসেন্স প্রদানসহ নানা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।
উজিরপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র হেমায়েত উদ্দিন বলেন, মেয়র ভারত ভ্রমনে গিয়েছেন। কিন্তু কাউকে লিখিতভাবে দায়িত্ব দিয়ে যাননি। কবে আসবেন তাও জানা নেই। সচিব ফারুক হোসেনও ছুটিতে। সহকারী প্রকৌশলী বানারীপাড়ারও দায়িত্বে থাকায় তাকে সেখানেও থাকতে হচ্ছে। এ সুযোগে অফিস স্টাফরা হাজিরা দিয়ে চলে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, মেয়র নেই তাই জনগন যে কোন সমস্যায় পড়তেই পারে। গতকাল শান্তি রঞ্জন ঘোষ নামে একজন ওয়ারিশ সার্টিফিকেট নিতে তার কাছে এসেছিলেন। কিন্তু তিনি বলেছেন, মেয়র দায়িত্ব না দেয়ায় তিনি সিদ্ধান্ত দিতে পারবেন না। এ অবস্থায় নাগরিক সেবার পাশাপাশি প্রশাসনিক কার্যক্রমও অনেকাংশে স্থবির বলে জানান, প্যানেল মেয়র হেমায়েত। পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিম ঘরামি বলেন, মেয়র ভারত গেছেন। কবে আসবেন জানা নেই। কাউকে দায়িত্ব দিয়েছেন কিনা তাও জানা নেই। নাম প্রকাশ না করার শর্তে উজিরপুরের এক বাসিন্দা বলেন, নতুন পৌরসভার কোন শৃংখলা নেই। মেয়র নেই, সচিব নেই, প্রকৌশলী নেই, স্টাফরাও নিস্ক্রিয়। পৌরভবনে গিয়ে কোন সেবা পাওয়া যাচ্ছে না।
পৌরসভার অফিস সহকারী সাইফুল ইসলাম বলেন, গত সোমবার মেয়র ভারতে গেছেন। সচিব ছুটিতে আছেন। তিনি প্যানেল মেয়রকে বলেছিলেন প্রয়োজনে কোথায় তাকে পাওয়া যাবে। কিন্তু তাকে লিখিতি দায়িত্ব দিয়েছে কিনা জানা নেই। উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝুমুর বালা বলেন, মেয়র কোথায় গেছেন তা তার জানা নেই। স্থানীয় সরকার শাখা এ বিষয়ে বলতে পারবে।
এব্যপারে বরিশাল জেলা প্রশাসক ড. গাজী মোঃ সাইফুজ্জামান বলেন, জনপ্রতিনিধিদের দেশের বাহিরে যেতে হলে মন্ত্রনালয়ের অনুমতি দরকার হবে। উজিরপুর পৌর মেয়র দেশের বাহিরে গেলে তাকে অফিসিয়ালি কাউকে দায়িত্ব দিয়ে যেতে হবে। এমনটা করা হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে।রে যাচ্ছেন। প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলররা জানান, মেয়রের অনুপস্থিতিতে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া যাচ্ছে না। কবে নাগাদ ফিরবেন তাও জানা নেই। এ নিয়ে গোটা উজিরপুরে নানা গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে।
নির্ভরযোগ্য সুত্রমতে, গত সোমবার আকস্মিক ভারতের উদ্দেশ্যে যান উজিরপুরের পৌর মেয়র যুবলীগ সভাপতি গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারী। তিনি ভারতের বিভিন্ন স্থান ভ্রমনে গিয়েছেন বলে তার ঘনিষ্ঠজনরা জানিয়েছেন। অবশ্য আনুষ্ঠানিকভাবে কাউকে দায়িত্বপ্রদান কিংবা স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়কে অবহিতও করে যাননি। এর ফলে উজিরপুর পৌরসভার কার্যক্রম এখন অনেকাংশে স্থবির হয়ে আছে। পৌরভবনের তথ্যমতে, গত ক’দিন ধরে পৌরবাসী নাগরিক সুবিধা পেতে আসলেও শুন্য হাতে ফিরে যাচ্ছেন। ওয়ারিশ সার্টিফিকেট প্রদান, রাস্তা-ঘাট নির্মান, জলাবদ্ধতা নিরসন, পয়নিস্কাসন, রিকশা, অটোরিক্সার লাইসেন্স প্রদানসহ নানা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।
উজিরপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র হেমায়েত উদ্দিন বলেন, মেয়র ভারত ভ্রমনে গিয়েছেন। কিন্তু কাউকে লিখিতভাবে দায়িত্ব দিয়ে যাননি। কবে আসবেন তাও জানা নেই। সচিব ফারুক হোসেনও ছুটিতে। সহকারী প্রকৌশলী বানারীপাড়ারও দায়িত্বে থাকায় তাকে সেখানেও থাকতে হচ্ছে। এ সুযোগে অফিস স্টাফরা হাজিরা দিয়ে চলে যাচ্ছেন। তিনি বমেয়র’র বিদেশ ভ্রমন স্থবির পৌর কার্যক্রম
এম জামাল হোসেন : বরিশালের নবগঠিত পৌরসভা উজিরপুরের মেয়র গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারী হঠাৎ করেই সকলের অগোচরে বিদেশ ভ্রমনে গিয়েছেন। নতুন পৌরসভার দায়িত্বও দিয়ে যাননি কাউকেই। এমনকি পৌর সচিবও ছুটিতে আছেন। গত ৩ দিন ধরে তাই পৌরসভার কার্যক্রম অনেকাংশে স্থবির। সাধারন মানুষ সেবা পেতে পৌর ভবনে এসেও ফিরে যাচ্ছেন। প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলররা জানান, মেয়রের অনুপস্থিতিতে কোন সিদ্ধান্ত নেয়া যাচ্ছে না। কবে নাগাদ ফিরবেন তাও জানা নেই। এ নিয়ে গোটা উজিরপুরে নানা গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে।
নির্ভরযোগ্য সুত্রমতে, গত সোমবার আকস্মিক ভারতের উদ্দেশ্যে যান উজিরপুরের পৌর মেয়র যুবলীগ সভাপতি গিয়াস উদ্দিন ব্যাপারী। তিনি ভারতের বিভিন্ন স্থান ভ্রমনে গিয়েছেন বলে তার ঘনিষ্ঠজনরা জানিয়েছেন। অবশ্য আনুষ্ঠানিকভাবে কাউকে দায়িত্বপ্রদান কিংবা স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়কে অবহিতও করে যাননি। এর ফলে উজিরপুর পৌরসভার কার্যক্রম এখন অনেকাংশে স্থবির হয়ে আছে। পৌরভবনের তথ্যমতে, গত ক’দিন ধরে পৌরবাসী নাগরিক সুবিধা পেতে আসলেও শুন্য হাতে ফিরে যাচ্ছেন। ওয়ারিশ সার্টিফিকেট প্রদান, রাস্তা-ঘাট নির্মান, জলাবদ্ধতা নিরসন, পয়নিস্কাসন, রিকশা, অটোরিক্সার লাইসেন্স প্রদানসহ নানা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।
উজিরপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র হেমায়েত উদ্দিন বলেন, মেয়র ভারত ভ্রমনে গিয়েছেন। কিন্তু কাউকে লিখিতভাবে দায়িত্ব দিয়ে যাননি। কবে আসবেন তাও জানা নেই। সচিব ফারুক হোসেনও ছুটিতে। সহকারী প্রকৌশলী বানারীপাড়ারও দায়িত্বে থাকায় তাকে সেখানেও থাকতে হচ্ছে। এ সুযোগে অফিস স্টাফরা হাজিরা দিয়ে চলে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, মেয়র নেই তাই জনগন যে কোন সমস্যায় পড়তেই পারে। গতকাল শান্তি রঞ্জন ঘোষ নামে একজন ওয়ারিশ সার্টিফিকেট নিতে তার কাছে এসেছিলেন। কিন্তু তিনি বলেছেন, মেয়র দায়িত্ব না দেয়ায় তিনি সিদ্ধান্ত দিতে পারবেন না। এ অবস্থায় নাগরিক সেবার পাশাপাশি প্রশাসনিক কার্যক্রমও অনেকাংশে স্থবির বলে জানান, প্যানেল মেয়র হেমায়েত। পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিম ঘরামি বলেন, মেয়র ভারত গেছেন। কবে আসবেন জানা নেই। কাউকে দায়িত্ব দিয়েছেন কিনা তাও জানা নেই। নাম প্রকাশ না করার শর্তে উজিরপুরের এক বাসিন্দা বলেন, নতুন পৌরসভার কোন শৃংখলা নেই। মেয়র নেই, সচিব নেই, প্রকৌশলী নেই, স্টাফরাও নিস্ক্রিয়। পৌরভবনে গিয়ে কোন সেবা পাওয়া যাচ্ছে না।
পৌরসভার অফিস সহকারী সাইফুল ইসলাম বলেন, গত সোমবার মেয়র ভারতে গেছেন। সচিব ছুটিতে আছেন। তিনি প্যানেল মেয়রকে বলেছিলেন প্রয়োজনে কোথায় তাকে পাওয়া যাবে। কিন্তু তাকে লিখিতি দায়িত্ব দিয়েছে কিনা জানা নেই। উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝুমুর বালা বলেন, মেয়র কোথায় গেছেন তা তার জানা নেই। স্থানীয় সরকার শাখা এ বিষয়ে বলতে পারবে।
এব্যপারে বরিশাল জেলা প্রশাসক ড. গাজী মোঃ সাইফুজ্জামান বলেন, জনপ্রতিনিধিদের দেশের বাহিরে যেতে হলে মন্ত্রনালয়ের অনুমতি দরকার হবে। উজিরপুর পৌর মেয়র দেশের বাহিরে গেলে তাকে অফিসিয়ালি কাউকে দায়িত্ব দিয়ে যেতে হবে। এমনটা করা হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে।লেন, মেয়র নেই তাই জনগন যে কোন সমস্যায় পড়তেই পারে। গতকাল শান্তি রঞ্জন ঘোষ নামে একজন ওয়ারিশ সার্টিফিকেট নিতে তার কাছে এসেছিলেন। কিন্তু তিনি বলেছেন, মেয়র দায়িত্ব না দেয়ায় তিনি সিদ্ধান্ত দিতে পারবেন না। এ অবস্থায় নাগরিক সেবার পাশাপাশি প্রশাসনিক কার্যক্রমও অনেকাংশে স্থবির বলে জানান, প্যানেল মেয়র হেমায়েত। পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিম ঘরামি বলেন, মেয়র ভারত গেছেন। কবে আসবেন জানা নেই। কাউকে দায়িত্ব দিয়েছেন কিনা তাও জানা নেই। নাম প্রকাশ না করার শর্তে উজিরপুরের এক বাসিন্দা বলেন, নতুন পৌরসভার কোন শৃংখলা নেই। মেয়র নেই, সচিব নেই, প্রকৌশলী নেই, স্টাফরাও নিস্ক্রিয়। পৌরভবনে গিয়ে কোন সেবা পাওয়া যাচ্ছে না।
পৌরসভার অফিস সহকারী সাইফুল ইসলাম বলেন, গত সোমবার মেয়র ভারতে গেছেন। সচিব ছুটিতে আছেন। তিনি প্যানেল মেয়রকে বলেছিলেন প্রয়োজনে কোথায় তাকে পাওয়া যাবে। কিন্তু তাকে লিখিতি দায়িত্ব দিয়েছে কিনা জানা নেই। উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝুমুর বালা বলেন, মেয়র কোথায় গেছেন তা তার জানা নেই। স্থানীয় সরকার শাখা এ বিষয়ে বলতে পারবে।
এব্যপারে বরিশাল জেলা প্রশাসক ড. গাজী মোঃ সাইফুজ্জামান বলেন, জনপ্রতিনিধিদের দেশের বাহিরে যেতে হলে মন্ত্রনালয়ের অনুমতি দরকার হবে। উজিরপুর পৌর মেয়র দেশের বাহিরে গেলে তাকে অফিসিয়ালি কাউকে দায়িত্ব দিয়ে যেতে হবে। এমনটা করা হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Comment moderation is enabled. Your comment may take some time to appear.