আজ : ২৩শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং , ১০ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Breaking News

ফুলবাড়ীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক বাড়ীতে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় টিনের ঘর,খড়ের গাদা ও খাদ্য শষ্য পুড়ে প্রায় ৩ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টায় উপজেলার ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নের খোলারহাট এলাকায়।প্রত্যক্ষদর্শী-ননীবালা(৪০) ফটকু দাস(৫০) ও শোমবারু চন্দ্র(৫৫) জানান, ওই গ্রামের মৃত নলীনি কান্ত সরকারের বড় ছেলে ধীরেন্দ্র নাথ সরকারের(পচা বাবু) ওয়ারীশদের সাথে ছোট ছেলে নরেশ চন্দ্র সরকারের ওয়ারীশদের পৈত্রিক সম্পত্তির ভাগাভাগী নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছে। সম্প্রতি পচা বাবু ও তার ওয়ারীশরা তাদের সমস্ত জমি স্থানীয়দের কাছে বিক্রি করে সপরিবারে ভারত চলে যান।

পৈত্রিক জমি হওয়ায় ওই বিক্রিত জমির মধ্যে ছোট ভাই নরেশ চন্দ্র সরকারের ভোগদখলীয় কিছু জমি পড়ে যায়। ঘটনার দিন জমির ক্রেতারা লোকজন নিয়ে এসে জমির দখল নেয়ার চেষ্টা করলে হট্টোগোলের মধ্যে কে বা কাহারা নরেশ চন্দ্র সরকারের বাহির উঠানের গোলাঘর ও খড়ের গাদায় আগুন লাগিয়ে দেয়। আগুনে মুহুর্ত্যরে মধ্যে ওই ঘরে থাকা প্রায় শতাধিক মন ধান, ৪৫ মন ভুট্টা,১৮মন পাট,১টি পাওয়ার টিলার,১টি বাইসাইকেল সহ সর্বস্ব পুড়ে যায়। খবর পেয়ে নাগেশ্বরী ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে।

নরেশ চন্দ্র সরকারের পুত্র বিপুল চন্দ্র সরকার জানান, সকালে আজিমুদ্দি মুন্সির ছেলে আবু তালেব,সোবাহান,হাফেজ আলীর ছেলে আলম, নুর হোসেনের ছেলে সিরাজুল সহ ২৫/৩০ জন লোক লাঠিসোটা নিয়ে আমাদের বাড়ীর বেড়া ভাংতে শুরু করে। আমরা বাধা দিলে তারা আমাদের ধাওয়া করে।আত্নরক্ষার্থে আমরা বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে যাই। পরে তারা আমাদের গোলাঘর ও খড়ের গাদায় আগুন লাগিয়ে দিয়ে চলে যায়।
এব্যাপারে ভাঙ্গামোড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান বাবু বলেন, ঘটনাটি পূর্ব পরিকল্পিত।

ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ এবিএম রেজাউল ইসলাম জানান, ঘটনা শোনার সাথে সাথে পুলিশফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে। ক্ষতিগ্রস্থদের অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Comment moderation is enabled. Your comment may take some time to appear.