আজ : ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং , ৩রা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

সাংবাদিক মোস্তফার পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করতে, কক্সবাজার যাচ্ছেন সাংবাদিক নেতারা

বিশেষ প্রতিনিধি:রিপোর্ট এইচ এম সালাহ উদ্দিন কাদের ডিএসইএন টিভি কক্সবাজার টেকনাফ থানার ওসি, ঠান্ডা মাথার খুনি প্রদীপের সীমাহীন বর্বরতায় স্থানীয় সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফার ওপর নির্যাতন ঘটনার বর্ণনা জানতে ৫ সদস্যের সাংবাদিকদের একটি তদন্ত টিম কক্সবাজার যাচ্ছেন। আগামি ১০ আগষ্ট সোমবার তারা ঢাকা থেকে কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হবেন। মঙ্গলবার সকালে তারা জেলা প্রশাসকের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি পাঠাবেন।সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ পুলিশ সুপারের সাথে সৌজন্য স্বাক্ষাৎ শেষে জেলগেটে ফরিদুল মোস্তফার সাথে সাক্ষাৎ গ্রহন করবেন।

এতে নেতৃত্ব দিবেন, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী আহমেদ আবু জাফর।কমিটির অপর সদস্যরা হলেন, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সিনিয়র রিপোর্টার ও ক্রাইম ইনভেষ্টিগেশন সেল প্রধান সাইদুর রহমান রিমন, বাংলাদেশ অনলাইন সংবাদপত্র সম্পাদক পরিষদ (বনেক) সভাপতি ,দৈনিক আমাদের কন্ঠ ও বিডি২৪লাইভের বিশেষ প্রতিনিধি” ক্রাইম চিপ” মোঃ খায়রুল আলম রফিক, অনলাইন এডিটরস কাউন্সিলের প্রতিষ্ঠাতা আবুল কালাম আজাদ,। টিমের সহযোগি সদস্য হিসেবে আরো ২৫ জন সাংবাদিক সেখানে যোগ দেবেন।বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, টেকনাফের তৎকালীন ওসি প্রদীপ দাশের নির্যাতনের শিকার ফরিদুল মোস্তফা প্রাণভয়ে ১১ মাস ধরে কক্সবাজার কারাগারে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। এই ওসি ও তার সহযোগীদের নানা অপকর্মের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করায় প্রদীপ কুমার সীমাহীন আক্রোশে তাকে ২০১৯ সালের ২১ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মিরপুর এলাকা থেকে সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফাকে ধরে টেকনাফ থানায় নিয়ে তার উপর অমানষিক বর্বরতা চালায়। সে সময় তার চোখে মরিচের গুঁড়া দিয়ে নির্যাতন করায় বর্তমানে দুটি চোখই নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

এছাড়া তার হাত-পা ভেঙে গুড়িয়ে দেয়া হয়। এতেও ক্ষ্যান্ত হননি ওই বর্বর ওসি- ইয়াবা ব্যবসায়ি সাজিয়ে সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়। ওই মামলায় জামিনের ক্ষেত্রেও ওসি প্রদীপ কুমার এ পর্যন্ত নানা প্রভাব ও কুটকৌশল খাটিয়ে বাধার সৃষ্টি করে নির্যাতিত সাংবাদিককে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে।নজিরবিহীন নির্মমতার শিকার সাংবাদিক ফরিদুল মোস্তফার ঘটনা জানতে বিএমএসএফ এর উদ্যোগে সাংবাদিক, আইনজীবি, মানবাধিকারকর্মীর সমন্বয়ে একটি তদন্ত টিম কক্সবাজারে যাচ্ছেন। তারা ঘটনার আদ্যপ্রান্ত তদন্তের পাশাপাশি আইনি সহায়তা প্রদানের যাবতীয় পদক্ষেপ নিবেন।জেলগেটে তার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেয়াসহ উন্নত চিকিৎসা সুবিধা নিশ্চিত করার পদক্ষেপও নিবেন তারা।উল্লেখ্য, চরম অসুস্থ অবস্থায় সাংবাদিক মোস্তফা দীর্ঘ ১১ মাস যাবত কারাগারে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Comment moderation is enabled. Your comment may take some time to appear.