আজ : ২১শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং , ৮ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Breaking News

যেভাবে ধর্ষণের পর তোবা মনিকে হত্যা করা হয় শেষের পাতা

ধর্ষণের পর গলায় ফাঁস লাগিয়ে শিশু তোবা মনি (৭)কে হত্যা করে ফেরিওয়ালা আরশাদুর রহমান (৩৮)।
তোবা হত্যায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ বুধবার আরশাদুরকে গ্রেপ্তার করে। রাতেই সে পুলিশের কাছে হত্যার কথা স্বীকার করে। এরপর গতকাল তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মঈনুর রহমান জানান, আরশাদুর দীর্ঘদিন ধরেই তোবা মনিকে উত্ত্যক্ত করে আসছিলো। সে বিভিন্ন সময় তাকে টাকা-পয়সা দেয়ার চেষ্টা করতো, চকলেট কিনে দিতো।
আরশাদুর মাছিহাতার কাছাইট গ্রামে গত ৩ বছর ধরে ভাড়া থেকে ফিতা-চুড়ি বিক্রি করতো। তার বাড়ি পাশের জগৎসার গ্রামে। এর আগে সে চট্টগ্রামে থাকতো। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সদর উপজেলার মাছিহাতা ইউনিয়নের কাছাইট গ্রামের একটি ক্ষেত থেকে তোবা মনির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত তোবা কাছাইট গ্রামের মাওলানা শফিকুল ইসলামের মেয়ে। সে স্থানীয় একটি কিন্ডারগার্টেনে প্রথম শ্রেণিতে পড়তো। শফিকুলের ৫ সন্তানের মধ্যে তোবাই ছিল তার একমাত্র মেয়ে।
ঐদিন রাতে বাড়ি না ফেরায় তোবাকে বিভিন্নস্থানে খোঁজাখুঁজি করে তার স্বজনরা। এলাকায় মাইকিংও করা হয়। পরদিন সকালে বাড়ির কাছেই মিলে তার লাশ।
এ ঘটনায় তোবার পিতা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে আরশাদুরকে একমাত্র আসামি করে থানায় হত্যা মামলা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Comment moderation is enabled. Your comment may take some time to appear.