আজ : ২১শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং , ৮ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Breaking News

বাবুগঞ্জে পিতাকে মেরে তাড়িয়ে দিয়েছে কুলাঙ্গার পুত্র

বরিশাল অফিস : বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার ওলানকাঠী গ্রামের বারেক হাওলাদারের পুত্র আবুল কালাম ও তার ছেলে সোহেল , জনি মিলে হাত ভেঙ্গে তাড়িয়ে দিয়েছে পিতা মাতাকে। অসহায় হত দরিদ্র পরিবারটি বেঁচে থাকার তাগিদে মানুষের কাছে হাতপেতে ভিক্ষা করা শুরু করে । মেয়ে শাহানাজের জামাই রিক্সা চালক বিধায় তার সামনে পরে নিয়ে যায় জামাই বাড়ি । ১২ বছর থেকে আজ পর্যন্ত তারা মেয়ে জামাইর বাড়িতে থাকে বুড়া বুড়ি । থাকার সুবাধে মেয়েকে তার জমি দান করেন দুই ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের উপস্থিতে । এদিকে বোনকে জমির দান করায় বোনের তোলা ঘড় দখল করে নিজের আয়েত্তে রেখে স্থানীয় সন্ত্রাসীদের দিয়ে মা-বাবা বোনকে জমি ঘরের কাছে আসতে দেয় না কুলাঙ্গার সন্তান কালাম ও তার দুই স্ত্রী , পুত্র কন্যারা মিলে । এবিষয় নিয়ে একাধিক বার স্থানীয় থানায় অভিযোগ দিয়ে ও কোন সুফল পায়নি । সম্পতির লোভে আপন বোনের ছেলেকে অপহরন করতে ও দিধাবোধ করেনি কালাম । অভিযোগ উঠেছে , আবুল কালামের ছেলে সোহেল,জনির মাদক ব্যাবসা করে , ইয়াবা , বাবা, গাঁজা,হিরোইন পুলিশের চোখ ফাকি দিয়ে রমরমা ব্যাবসা চালিয়ে আসছে । আবদুল বারেক হাওলাদার প্রতিবেদকের একান্ত সাক্ষাতকারে কান্না জনিত কন্ঠে বলে , এমন কুলাঙ্গার সন্তান যেন আল্লাহ আর কাউকে না দেয় । ভয়াবহ বেদনা দায়ক জন্তনার কথা আযও মনে পরে । কুলাঙ্গার সন্তানের মাদক ব্যাবসা জোগান দেওয়ার জন্য জমি বিক্রি করে টাকা চায় আমি দিতে অস্বিকার করলে নেমে আসে নির্যাতন । দিন দিন নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে চলে পুত্র কালামের । নির্যাতনের মাত্রা সইতে না পেরে ঘর বাড়ি ছেরে পালিয়ে ভিক্ষা করে খাওয়া শুরুকরি । মেয়ে জামাই দেখে তাদের বাড়িতে নিয়ে সেবাযতœ শুরু করে তাতে আমি খুসি হই । মৃত্যুর আগ পযন্ত আমাদের খাওয়া পরা দেখা শুনা করার অঙ্গিকার করায় মেয়েকে আমার জমি দান করি । তখন দুই জন ইউপি চেয়ারম্যান উপস্থিত ছিলেন । খবর পেয়ে আমার কুলাঙ্গার সন্তান কালাম আমার স্ত্রী সহ আমাকে মেরে হাপ পা ভেঙ্গে দেয় । বেশ কিছু দিন আমরা হাসপাতালে থাকি । পরে আমার বসত বাড়ি মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে ফিরে আসলে দা হাতে নিয়ে বলে এদিকে আগালে ঘাড় থেকে মাথা আলেদা করবো । এবিষয়ে আমি ও আমার মেয়ে শাহানাজ বাবুগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়ে ও কোন সুফল পায়নি । আপনাদের মাধ্যমে আমি বিচার চাই। এব্যাপারে সরেজমিনে গিয়ে কালামের কাছে জানতে চাইলে সাংবাদিকদের দেখে ঘরের দরজা বন্ধ করে কোন সদ উওর দিতে পারেনি । কুলাঙ্গার ছেলের বিচার মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে যখন পায়নি তখন সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকতার হস্তক্ষেপ কামনা করছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Comment moderation is enabled. Your comment may take some time to appear.