আজ : ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং , ৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Breaking News

উজিরপুরে ইউপি চেয়ারম্যানকে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

সাবিনা ইয়াসমিন ঃ বরিশালের উজিরপুর উপজেলার সোলক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ কাজী হুমায়ন কবিরকে এক ব্যক্তি মামলাসহ বিভিন্নভাবে হয়রানি করছেন বলে জানাগেছে । সোলক ইউনিয়নের নুরুল হক হাওলাদার গংরা নানাভাবে হয়রানি করছে। কখনো মামলা দিয়ে আবার কখনো মিথ্যে সংবাদ প্রকাশ করে হয়রানি করে চলেছে । উজিরপুর উপজেলার সোলক ইউনিয়নের সেলিম শরিফ মরজিনা। সরকারের কাজ থেকে বন্দবস্ত নেয় তাহার ভূমিহিন দলিল নং ২৯৬৬ কেস নং ৩২/৯৮-৯৯ । ভূমিহিনদের কাছ থেকে ছয় বছর আগে অথাৎ ২০১৪ সনে মো ঃ ফেরদুস ও সাইদ কাজী ( লিটু ) ক্রয় করে যাহার দলিল নং ২৮৬৪ তারিখ ঃ১৭/০৭/২০১৪ ইং পরিমান ৩ শতাংশ । মিউটিসন করে ১৯/০১/২০১৭ সনে কেস নং-৯২৯ সাইদ কাজী ও ফেরদাউস খাজনা দাখিলা পরিষদ করে বই নং ৫ হাজার পৃষ্ঠা ১৭ তারিখ ০৫/০২/২০১৭ সনে । ফেরদাউসের অংশ সাব কবলা দলিল মূলে ক্রয় করে ফারজানা আক্তার মৌসুমির নামে তিনি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ কাজী হুমায়ন কবিরের স্ত্রী যাহার দলিল নং ১৮৪১ তারিখ ঃ ০৩/০৫/২০১৭ সনে । উক্ত দলিল মূলে খতিয়ার খোলা হয় যাহার নং -৩৩৯৫ । সূত্র জানায়,অন্যায় কাজের সমর্থন না দেওয়ায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা করে। এমনকি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মানুষের কাছে আজেবাজে কথা বলে বেড়ায় । সংবাদ প্রচার করছে। অথচ ওই জমি চেয়ারম্যানের স্ত্রী নামে দলিল রেকড বিএস সম্পন্ন হয়েছে।চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ কাজী হুমায়নের সুনাম ক্ষুণ্ণ করার জন্যই তারা উঠে পড়ে লেগেছে। চেয়ারম্যান তাদের অন্যায় আবদারে সমর্থন দেইনি বলে তারা এভাবে চেয়ারম্যানকে হয়রানি করছে। বিষয়টি প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে সুদৃষ্টি কামনা । সরেজমিনে গিয়ে জানাযায়,বন্দবস্ত পাওয়া ভূমিহিনরা সকলেই জমি অন্যের কাছে বিক্রি করে দেয় । এ ব্যাপারে সাংবাদিকরা নুরুল হক হাওলাদারের কাছে বক্তব্য চাইতে গেলে বলে আমি মাসুদ হাওলাদারের কাছে যাইতেছি তার কাজ থেকে ফিরে এসে আপনাদের সাথে কথা বলবো । ২ ঘন্টা বসেও তার বক্তব্য পাওয়া জায়নি ।চেয়ারম্যানকে জড়িয়ে যে সংবাদ প্রকাশ করিয়াছে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় তার উল্টো । খোজ খবর নিয়ে জানাযায় উজিরপুর উপজেলার মধ্যে ভাল চেয়ারম্যানের তালিকায় অধ্যক্ষ কাজী হুমায়ন কবির শির্ষে। এলাকায় তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে । জনসাধারনের সাথে কথা বলে এমনটাই জানাগেছে । আমাদের অনুসন্ধানে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষন করে দেখাযায় , চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কোন জনগন বিরুপ হয়নি । শান্তসৃষ্ট ভদ্র ব্যাক্তি রাজ নৈতিক অঙ্গনে ও তার ব্যাপক সুনাম । একটি অসাদুচক্র রাজনৈতিকভাবে তাকে ও তার ফ্যামিলিকে হেয় করার জন্য সাংবাদিক ভাইদেরকে দিয়ে এমন সংবাদ প্রকাশ করিয়াছেন । এমন সংবাদের ভিন্নমত, একজন চেয়ারম্যানের নামে এভাবে মিথ্যা অভিযোগ আনাদের ও বিচার হওয়া উচিত বলে মনে করেন এলাকার শান্তিপ্রিয় মানুষেরা । সূত্রে জানাযায়, চেয়ারম্যান যে জমিটুকু স্ত্রীর নামে ক্রয় করছেন তা অসাধুচক্র পুজি করে ইমেজ নষ্ট করার পায়তারা চালায় ।এমন প্রশ্ন এলাকাবাসী শান্তিপ্রিয় মানুষের জমিক্রয় করা ব্যাক্তিকে কিভাবে ওরা ভূমিদস্যু আখ্যাদেয় । তাদের বিরুদে ব্যাবস্থা নেওয়ার জোর দাবী জানায় ওই এলাকার শান্তিপ্রিয় নারী-পুরুষেরা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Comment moderation is enabled. Your comment may take some time to appear.